ড্রপশিপিং বিজনেস গাইডলাইন

/
/
/
52 Views

আপনি যদি ড্রপশিপিং বিজনেস শুরু করতে চান আর আপনি কোন ভাবেই যদি কোন উপায় খুজে না পান!

তাহলে এই পোস্ট টি একবার হলে ও দেখে নিবেন ।

নন রেসিডেন্স যারা আছেন তাদের বেশীর ভাগী এভাবেই সফল ভাবে বিজনেস করে আসছে ।
UK থেকে প্রাইভেট লিমিটেড কোম্পানি করে এই সমস্যার সমাধান করা যায় ।

লিগ্যাল উপায়ে বিদেশী কোম্পানী বানিয়ে ড্রপশিপিং বিজনেস করছি – বাংলাদেশে বসেই বিদেশী বুকে পন্য বিক্রয় বা সার্ভিস বিক্রয় করতে পারছি 😵

আমার কি লাভ হল?
আমার লাভ একটাই – সার্ভিসটা বাংলাদেশ থেকে অনেকেই দিয়ে থাকেন তবে তাদের প্রাইস ৫৬০০০-৬০০০০ টাকার একটু বেশী হওয়াতে কিছু ভাই আছেন যারা আগ্রহ হারিয়ে আর কাজ করেন না ।বা এত টাকা দিয়ে বিদেশী company করতে চান না । আমি তাদের প্রাইস থেকে ৪০% কমে একই সার্ভিসটি দিবো – আর আপনার বিদেশী যেই company করে দিবো সেটির বছরের যেই Tax এবং যাবতীয় যা কিছু আছে সব কিছুর হিসেব সব কিছুই লয়ার এর মাধ্যমে ফাইল করে দেয়া।

আপনার কাজ হবে শুধু রেভেনিউ জেনারেট করা।
—————–
রেভেনিউ ত জেনারট করলেন এবার পেমেন্ট কিভাবে নিবেন ?
আপনার কাছে ত শুধু মাত্র একটা কোম্পানী আছে আর কিছু নাই ।

আপনি বাংলাদেশী কিন্তু আপনার কোম্পানী বিদেশী । আপনি এই বিদেশী কোম্পানীর ডকুমেন্ট দিয়ে সুন্দর ভাবেই আপনার বিজনেসকে নেক্সট লেভেলে নিয়ে যেতে পারবেন।

নন রেসিডেন্স যারা আছেন তাদের বেশীর ভাগী এভাবেই সফল ভাবে বিজনেস করে আসছে ।
UK অথবা USA থেকে প্রাইভেট লিমিটেড কোম্পানি করে এই সমস্যার সমাধান করা যায় ।

যেহেতু আপনি – বা আমি USA থেকে কোম্পানি খুলতে গেলে আনুমানিক ৮হাজার-১০হাজার ডলার খরচ করতে হতে পারে । আর আমরা যেহেতু অল্প তেলে কড়কড়া ভাজা মাছ খেতে ভালোবাসি এই জন্য আমরা খুজি কিভাবে কম খরচে সব কিছু হাতে পাওয়া যায় । 😵

আপনি আমি UK থেকে যদি কোম্পানী খুলে কাজ করি কি কি সুবিধা পাবো আর -খরচি বা কেমন হতে পারে ?

এটা দিয়ে আপনি লিগ্যালি পেপাল,স্ট্রাইপ একাউন্ট করতে পারবেন। কোন প্রবলেম ছাড়া ব্যবহার করতে পারবেন ।

কি কি লাগতে পারে ,কোম্পানী খোলার জন্য?

১। ভোটার আইডি কার্ড অথবা পাসপোরট
২। একাদিক শেয়ার রাখতে চাইলে তাদের প্রত্যেকের আলাদা করে ভোটার আইডি অথবা পাস্পোরট দেয়া লাগবে ।
৩। লাস্ট ৪ মাসের লোকাল ব্যাঙ্ক স্টেটমেন্ট
–৩য় দিনের মাথায় ভ্যারিফিকেশানের জন্য আসতে হবে ।
অন্যথায় না আসতে চাইলে নোটারি পাব্লিক এর মাধ্যমে ডকুমেন্ট ভ্যারিফাই করে আমাকে স্কেন করে পাঠালাই হবে ।

কত দিন সময় লাগবে ?
১০-১৩ বিজনেস ডে।
যদি ভ্যারিফিকেশান ডকুমেন্ট নোটারি করে দেয়া হয় তাহলে ৩-৫ বিজনেস ডে।

খরচ কেমন হতে পারে – ৩৬৫$ কোন হিডেন খরচ নেই ।

আর যদি আপনার স্টোর সাজিয়ে দেয়া থেকে শুরু করে কমপ্লিট একটা ড্রপশিপিং সাইট বিল্ড করে সব কিছু সেটাপ করে দেয়া লাগে তাহলে খরচ ৫৭০$ হবে আর হ্যা আপনার যদি মারকেটিং এ শুন্য নলেজ ও হয়ে থাকেন সেটার সমাধান পাবেন ।

যদি ও ড্রপশিপিং নিয়ে গাইডলাইন বা Course করানোর ইচ্ছা নাই – আর যদি ও করাই প্রতিজন এর ফি হিসেবে একটু বেশী পড়ে যাবে – এই ধরেন ৫৯.৯৯ ক টাকা এর মত পড়বে । 🤣
নোটঃ-শিউর না রেস্পন্স এর উপর ডিপেন্ড করবে ।

আমি কি বিজনেস এড্রেস পাবো?
জি পাবেন

আমি কি মোবাইল নাম্বার পাবো?
জি

ভ্যাট /ট্যাক্স দিতে হবে কি ?

১ম বছর কোন ট্যাক্স দিতে হবে না।
২য় বছর শেষে ট্যাক্স রিটার্ন সাবমিট করতে হবে।
আপনার টোটাল প্রফিটের ২০% তবে প্রফিট না থাকলে কোন ট্যাক্স দিতে হবে না 🤐

প্রফিট হিসেব কিভাবে হবে ?
আপনার এই বিজনেস ইনফরমেশন ব্যবহার করে যেখানেই বিজনেস করেন সেটার থেকে টোটাল প্রফিট এর ২০%।

প্রতিবছর রিনিউয়াল ফি কি দিতে হবে ?

জি দিতে হবে $৩৬৫
ধন্যবাদ ।

যারা আগ্রহী তারা ইনবক্স করে বিস্তারিত জানতে পারেন ।
৩৬৫$ অনেকের কাছেই বেশি মনে হতে পারে । জি যারা -২৫০$ তে এই সারভিসটি দেয় তারা কি শুধু অনলাইন কপি দেয় নাকি পিজিক্যাল ডকুমেন্ট + এক্সট্রা কোন হিডেন খরচ আছে কিনা জিজ্ঞাস করে নিবেন । বিস্তারিত জানতে চাইলে কমেেেন্ট  করুুন অথবা ০১৭১৬ ৯৮৮ ৯৫৩ ।
ধন্যবাদ

Post Credit:  Karsa ( Viral Style Banglades))

  • Facebook
  • Twitter
  • Google+
  • Linkedin
  • Pinterest

Leave a Reply

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.

It is main inner container footer text